গল্পের নাম অভাগী পর্ব :১৬
লেখা : তাবাসসুম
Bd love story 

গল্পের নাম অভাগী পর্ব :১৬।  bangla love story। দুঃখের প্রেম কাহিনী


মেঘ ধীরে ধীরে সুস্থ্য  হচ্ছে,,, অনেকটা নরমালো হয়েছে,,, বাসায় এসেছে মেঘ ৭ দিন হয়েছে,,, এই সাত দিন আকাশ মেঘকে দেখতে আশে নি,,, মেঘ কিছুটা নরমাল হওয়ার পর লুকিয়ে লুকিয়ে আকাশকে দেখেছে,, ঐ আরকি যখন খাচ্ছিলো তখন,, অফিস যাওয়ার সময়,, কিন্তু আকাশ একবারো মেঘের দিকে তাকিয়ে দেখেনি,,, একদিন তো আসমা বেগম বলেফেলেছিলো,,, কি ব্যাপার আকাশ,, মেঘ বাড়ি এলো,, একবারো দেখতে পর্যন্ত গেলে না??? উত্তরে আকাশ বলেছিলো,,,

আমাদের বাড়িতে মা রেহেনাও অসুস্থ্য হয় ( কাজের লোক)  তখন কি আমি দেখতে  যায় ও কেমন আছে,,? না কি,, হেন তেন!! ( খুব শান্ত গলায় কথা গুলু বলছে আর খাবার খাচ্ছে  নিচের দিকে তাকিয়ে)  বাড়িতে কাজের লোক অসুস্থ্য হলে,, মালিকদের দায়িত্ত্ব বেতন কিছু বাড়িয়ে দেওয়া,, দেখবাল করা মালিকের কাজ ন,,, 

দুঃখের প্রেম কাহিনী


  আকাশশশস!!!!!!!!! ( আসমা বেগম চিল্লিয়ে উঠে)   তুমি ভুলে যেওয়া তুমি আমার বাড়ির বউয়ের নামে এইসব বাজে কথা বলছো,,, ভুলে যেওয়া না,, যার সম্পর্কে  বলছো সে আমার মেয়ে,,, তুমি রাস্তার মানুষকে মেয়ে বানাতেই পারো কিন্তু আকাশ খান জানে কাকে কি করে ট্রিট করতে হয় দিবা,,, আন্না ( আকশকে দিবা মাঝে মাঝেই আন্না বলে ডাকে আদর করে)  এত টা মনুষত্ত্ব হীন হয়ে যেওনা যে,, একটা সময় কাউকেই কাছে না পাও এমন হয়ে যায়,,,, ভালোবাসার মানুষকে তখন কাছে পেয়েও ছুতে পারবে না,,, মেঘকে বিনা দোষে শাস্তি দিচ্ছো,, ও নিষ্পাপ,, এত কষ্ট ও ডিজার্ব  করে না ( কাঁদতে কাঁদতে তার মেয়েকে নিয়ে চলে গেলো)   আকাশ খাওয়া থামিয়ে চলে যেতে নিলো,,, তখন দেখলো  মেঘ হুইল চেয়ার ঘুড়িয়ে ঘড়ের ভিতর চলে যাচ্ছে,,, তারমানে এতক্ষনের সব কথা মেঘ শুনেছে,,, আকাশ মাথা না ঘামিয়ে চলে গেলো,,, আসমা বেগম,,,, আমি বড় ভুল করে ফেলেছি,,, এই অভাগীকে আমার ছেলের সাথে বিয়ে দিয়ে ,,, ভেবেছিলাম আমার ছেলে সুধ্রে যাবে কিন্তু আমি যে এত ভুল ছিলাম কখনো  বুঝি নি   ,,, ( কাঁদতে কাঁদতে) আমার মেয়েটাকে সুখ দিতে গিয়ে ওকে আরো দুঃখের বাঘীদারি করে ফেলেছি,,, ভালবাসার গল্প



মেঘ ঘড়ের দরজা বন্ধ করে খুব জোড়ে জোড়ে কান্না করছে,,, আকাশ আমি কি এতটাই অযোগ্য আপনার ?!!! একবারো কি আমাকে ভুল বুঝা ছাড়া আমাকে আপনি দেখতে পারেন না!!! কেনো আকাশ,,, কেনো!!??? আমি যে আপনাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন    দেখেছি,, আমার স্বামিকে নিয়ে যে আমার অনেক স্বপ্ন আকাশ,,, আপনি কি কখনো,, মেঘের আকাশ হবেন না!!! ( কাঁদতে কাঁদতে) ,,, কান্নার কারনে মেঘের হিচকি উঠে গেছে,, দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম,,,বিছানায় বসে,, হাতরে হাতরে গ্লাস টা নিতে চাচ্ছিলো কিন্তু  দূর্ভাগ্য হাত কাঁপার  কারনে গ্লাসটা ফ্লোরে পড়ে গেলো,,,   ডাইনিং এ তখন আকাশ পানি নেওয়ার জন্য এসেছিলো,, আওয়াজ পাওয়ায় মেঘের ঘড়ের দিকে যায়,, দরজার লকটি খুলে,, হালকা তাকিয়ে দেখে মেঘ কাত হয়ে,, বিছানার পাশের সেন্ট্রাল টেবিল থেকে পানি নিতে চাচ্ছিলো,,,, মেঘ ঐভাবেই কাত হয়ে উপুর হয়ে কেদেই যাচ্ছে,,, একটু পানি খেতে চেয়েছিলো,, তাও কপালে নেই,,,

রোমান্টিক ভালবাসার গল্প 


আহহহহ,, মেঘ হালকা চিৎকার করলো,, নিজেকে সামলাতে,, তখনি,, নাও,,,,,,, গ্লাস এগিয়ে দিয়ে,,, মেঘ গলার স্বর পেয়ে উপরে তাকায়,,, আকাশ মেঘের  মুখ দেখে    আৎকে উঠে,,, অসম্ভব রকিমের লাল হয়ে আছে মুখ,,, চুল গুলি মুখে লেগে আছে কিছু,, কান্নার কারনে  ,, চোখ ফুলে রয়েছে,, চোখ একদম লাল বর্ন ধারন করেছে মেঘ ভাবলেশহীন ভাবে   তাকিয়ে আছে,,  পা পানিটা খাও মেঘ সুজা হয়ে  মলিন হাসলো,,, খাও,, ঝি চাকরের জন্য মালিকরা   তাদের ঘড়ে আসে না,, তাই না??? ধন্যবাদ,,, পানি দেওয়ার জন্য,, এখন পানি খাইয়ে তারপর আবার বলবেন আমি লোভী,,, ধন্যবাদ,, তেষ্টা মিটে গেছে,, বলেই মেঘ কাথা টেনে শুয়ে পড়লো,, আকাশ গ্লাস রেখে চলে গেলো   ,,, মেঘ পাশ ফিরে ফুপিয়ে কাঁদছে,,, আকাশ দরজা লাগিয়ে চলে যেতেই কান্নার গতি বেড়ে গেলো,, ঐদিনের পর থেকেই মেঘ নিজের পায়ে হাঁটার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে,,

Romantic bangla love story 


ডাক্তার পায়ে প্রেসার কম  দিতে বলেছে,,, প্রেসার পড়লে আরো ক্ষতি হতে পারে,, তা জেনেও মেঘ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে

কিন্তু আসমা বেগম বাসায় থাকা কালীন খুব কম সুযুগ পায়,, একদিন তো অনেক বকেছিলো,,, অনেক কান্না করেছিলো,, তারপর মেঘ উনার বুকে মাথা রেখে  অনেক আদুরি কথা বলে কান্না থামায়,, আর কথা দিতে হয় যে,, আর হাটবে না একা,, মেঘ বাধ্য মেয়ের মতো মাথা নেড়ে দেয়।  আজ কেউ নেই,, সবাই একটু কাজে বের হয়েছে ,, আকাশ বাসায় আজ,, ও থাকাতেও তো মেঘের কাজে কোন প্রবলেম হবে না  ,, বরং মেঘ কষ্টে থাকলেই আকাশ খুশি হয়,, মেঘ আশ পাশ তাকিয়ে,, হুইল চেয়ার থেকে আস্তে আস্তে উঠলো,,, উঠে কিছু    দূর যেতেই পড়ে যায়,,, হাতে হালকা ব্যাথাও পেলো কিন্তু আবার উঠে বাগানের দিক গেলো খুড়িয়ে খুড়িয়ে  । অনেক ব্যাথাও পাচ্ছে পায়ে কিন্তু মেঘকে যে পারতেই হবে,, মেঘ হাঁটছে,, আকাশ বেলকানিতে ছিলো,,, আকাশ মেঘের দিকে তাকিয়ে আছে,, মেয়েটা এই অবস্থায় হাটছে কেনো,,, ও কি কিছু বুঝে না নাকি,,,

 Romantic bd love story 


ওফ সিট,, ( মেঘ কাদায় পড়ে যাওয়ায় বললো) মেঘ বসে বসে কাপড়ের ময়লা ঝাড়ছে,, হাত পরিষ্কার করছে,,, আকাশ ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে আছে,,, মেঘ,,, রাবেয়া রাবেয়া আমার হুইল চেয়ারটা নিয়ে আসবে একটু,,,, আরে মেডাম আপনি আবার??


হুসসসস


চলবে,,,,

Post a Comment

Previous Post Next Post